ঋণপত্র খুলতে না পেরে বিড়ম্বনায় ভারী শিল্প খাত

দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য ও ভারী শিল্প খাতের অন্যতম কেন্দ্র বন্দরনগরী চট্টগ্রাম। অর্ধেকেরও বেশি ভোগ্যপণ্য আমদানি হয় চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে। সাম্প্রতিক সময়ে ডলার সংকট, টাকার বিপরীতে ডলারের দাম বেড়ে যাওয়াসহ ব্যাংকগুলোতে তারল্য সংকট সৃষ্টি হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। জ্বালানি সংকটের কারণে এমনিতেই উৎপাদন নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। এর পাশাপাশি চাহিদামতো ঋণপত্র (এলসি) খুলতে না পারা ও নগদ অর্থ সরবরাহে ব্যাংকের ধীরগতির কারণে শিল্প-কারখানার উৎপাদন কমিয়ে দিতে বাধ্য হচ্ছেন শিল্পোদ্যোক্তারা।

চট্টগ্রামভিত্তিক বেশ কয়েকটি ভারী শিল্প গ্রুপের মালিক ও কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় ব্যাংকার ব্যাংকগুলোর এলসি সংকটসহ নগদ অর্থপ্রবাহের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তারা বলছেন, ঋণপত্র খুলতে ব্যবসায়ীদের এ বিড়ম্বনা না কাটলে অচিরেই অনেক শিল্প-কারখানার উৎপাদন বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এরই মধ্যে ভারী শিল্পের অনেক কারখানা মালিক তাদের উৎপাদন ১০-২০ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে দিয়েছেন। মজুদ কাঁচামাল দিয়ে ফিনিশড পণ্য উৎপাদন অব্যাহত থাকলেও স্ক্র্যাপ গলিয়ে বিলেট কিংবা অ্যাঙ্গেল নির্মাণের প্লান্টের উৎপাদন কার্যত বন্ধ করে দিয়েছে কোম্পানিগুলো।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, একসময় ভারী শিল্পের একেকটি এলসি ভ্যালু ১ মিলিয়ন ডলার পর্যন্ত উঠে যেত। বর্তমানে ১০ হাজার ডলারের বেশি এলসি খুলতে বাধা দিচ্ছে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। ছোট আকারে এলসি খোলার তথ্য ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে পাঠানো হয়। প্রধান কার্যালয় থেকে সেটি বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে অনুমোদিত হয়। এর পরই আমদানি প্রক্রিয়া শুরু করতে পারেন আমদানিকারকরা।

একাধিক ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, এখন এলসি খুলতে স্থানীয় কার্যালয়ে আবেদনের পর লবিং করতে ঢাকায় সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে ধরনা দিতে হচ্ছে। তাছাড়া ডিসেম্বর ক্লোজিংয়ের কারণেও ব্যাংকগুলোর সংকট তীব্র হয়েছে বলে মনে করছেন তারা। অন্যদিকে, তারল্য সংকটের বিষয়টি সরাসরি স্বীকার না করলেও ডিসেম্বর ক্লোজিংজনিত পরিস্থিতিতে আমানত উত্তোলনে আসা গ্রাহকদের ধরনভেদে দীর্ঘসূত্রতায় পড়তে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ব্যাংকাররা।

দেশের শীর্ষস্থানীয় ইস্পাতপণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেড (বিএসআরএম) ২০২১ সালে ১৫ লাখ টন সমপরিমাণ রড উৎপাদন ও বিক্রি করেছিল। নানা সংকটের কারণে চলতি বছর প্রতিষ্ঠানটির উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ১৫ লাখ টন। বাজারে রডের চাহিদা থাকলেও উৎপাদন কমাতে বাধ্য হয়েছে বিএসআরএম। এরই মধ্যে রোলিং প্লান্টের ১০ শতাংশ উৎপাদন কমিয়ে দেয়া হয়েছে। বিলেট-অ্যাঙ্গেলসহ অন্যান্য প্লান্টের উৎপাদনও বন্ধ হয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে পড়েছে দেশের শীর্ষস্থানীয় এ ইস্পাত প্রতিষ্ঠানটি।

একই অবস্থা চট্টগ্রামভিত্তিক মোস্তফা হাকিম গ্রুপের এইচএম স্টিলেরও। কয়েক মাস ধরে চলা জ্বালানি সংকটের কারণে উৎপাদন তিন শিফটের বদলে দুই শিফটে নামিয়ে আনা হয়েছে। বিভিন্ন ব্যাংকে চেষ্টা করেও কাঙ্ক্ষিত এলসি খুলতে বেগ পেতে হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটিকে। একসময় মাসে অন্তত পাঁচটি এলসি খুললেও বর্তমানে সেটি সর্বোচ্চ তিনটিতে দাঁড়িয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধাররা বলছেন, ভারী শিল্প-কারখানাগুলোয় এমনিতে কয়েক মাসের মজুদ থাকে। কিন্তু যেহেতু সংকট দীর্ঘায়িত হচ্ছে, আমদানি কমে যাচ্ছে। তাই ভবিষ্যতে পণ্য উৎপাদনে বড় ধরনের সংকট সৃষ্টি হতে পারে।

জানা গেছে, চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জ, জুবিলী রোডসহ বিভিন্ন ব্যবসাঘন এলাকার ব্যাংকের শাখাগুলোতে নগদ অর্থের সংকট রয়েছে। পরিস্থিতি এমন হয়েছে যে নগদ টাকা তুলতে গেলে সাধারণ গ্রাহকদেরও অনেক সময় ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। তাদেরই একজন জজ আদালতের আইনজীবী হেলাল উদ্দিন শিকদার। গত ২২ নভেম্বর চট্টগ্রামে বেসরকারি ব্যাংকের একটি শাখায় টাকা তুলতে যান তিনি। কিন্তু ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তাকে অনুরোধ করে যে একান্ত প্রয়োজন না হলে পরবর্তী কার্যদিবসে চেক নগদায়ন করতে। এর পরিপ্র্রেক্ষিতে পরদিন গিয়ে তিনি কাঙ্ক্ষিত পরিমাণের অর্থ উত্তোলন করেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে চট্টগ্রামের পূবালী ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বণিক বার্তাকে বলেন, ব্যাংকের প্রধান শাখাগুলোতে তারল্য সংকট সেভাবে নেই। তবে সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়ে বড় পরিমাণের নগদ অর্থ উত্তোলনে কেউ এলে সাময়িক সংকট তৈরি হয়। গ্রাহকদের বুঝিয়ে সেটি পরবর্তী কার্যদিবসে দেয়া হয়। এক্ষেত্রে গ্রাহকের একান্তই প্রয়োজন হলে যেকোনো উপায়ে অর্থ সরবরাহ অব্যাহত রাখা হয়।

তবে মোস্তফা হাকিম গ্রুপের পরিচালক মোহাম্মদ সরওয়ার আলম বণিক বার্তাকে বলেন, ব্যাংকগুলোতে এলসি সংকট থাকলেও এখন পর্যন্ত নগদ অর্থ উত্তোলনের ক্ষেত্রে সমস্যায় পড়তে হয়নি তাদের। কারণ ব্যাংকগুলো বড় গ্রাহকদের জন্য যেকোনোভাবে অর্থ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে চেষ্টা করে। তাছাড়া করপোরেট গ্রাহকরা নগদ অর্থ উত্তোলনের ক্ষেত্রে আগেই ব্যাংকগুলোতে জানিয়ে রাখে। আবার অনেক শিল্প গ্রুপের বেতন-ভাতা দেয়ার জন্য বড় অংকের অর্থ উত্তোলনের সময় সম্পর্কে ব্যাংকগুলো আগে থেকেই অবগত থাকে। সে অনুযায়ী তারা ব্যবস্থা নিয়ে রাখে।
এই বিভাগের আরও খবর
অর্থ সংকট, তবু এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণ সম্প্রসারণে এশিয়ায় সপ্তম বাংলাদেশ

অর্থ সংকট, তবু এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণ সম্প্রসারণে এশিয়ায় সপ্তম বাংলাদেশ

বণিক বার্তা
চিনির কেজিতে বাড়ল ৫ টাকা

চিনির কেজিতে বাড়ল ৫ টাকা

জনকণ্ঠ
বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ এক বছরে কমেছে ১৩ বিলিয়ন ডলার

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ এক বছরে কমেছে ১৩ বিলিয়ন ডলার

নয়া দিগন্ত
ব্যবসায়ীরা রিজার্ভ থেকে ডলার চান কেন

ব্যবসায়ীরা রিজার্ভ থেকে ডলার চান কেন

বাংলা ট্রিবিউন
অ্যালকোহল বিক্রি করে ৬ মাসে কেরুর আয় ২৩৩ কোটি টাকা

অ্যালকোহল বিক্রি করে ৬ মাসে কেরুর আয় ২৩৩ কোটি টাকা

বিডি প্রতিদিন
রডের বাজার ফের চড়া, টন ছাড়ালো ৯৪ হাজার

রডের বাজার ফের চড়া, টন ছাড়ালো ৯৪ হাজার

জাগোনিউজ২৪
ট্রেন্ডিং
  • ২০৩৫ সালের মধ্যে চীনের পারমাণবিক অস্ত্র বাড়বে তিন গুণ

  • তানজানিয়ায় প্লেন দুর্ঘটনায় নিহত ১৯

  • ব্যাংকে ৫ কোটি টাকার বেশি থাকলে বেশি কর

  • কাতার বিশ্বকাপে ফিরছে জিদানের সেই ভাস্কর্য

  • ইন্দোনেশিয়ার নিষেধাজ্ঞায় তেলের মূল্য আকাশছোঁয়া

  • অবিশ্বাস্য কীর্তিতে হাজার রানের ক্লাবে এনামুল বিজয়

  • স্বাধীনতাবিরোধীরা চায় না দেশ এগিয়ে যাক: প্রধানমন্ত্রী

  • 'স্পেশাল' গোলে মেসিকে টপকে গেলেন সুয়ারেজ

  • রোজায় নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে মাঠে থাকবে ১০ ভ্রাম্যমাণ আদালত

  • জামায়াতের সাবেক এমপি খালেকসহ দুজনের ফাঁসি