সালতামামি অর্থনীতি ২০১৯

রাজনৈতিক স্থিতির সঙ্গে অর্থনীতিতে যে স্বস্তি নিয়ে বাংলাদেশ ২০১৯ সাল শুরু করেছিল, ২০২০ সালের শুরুতে তার জায়গায় থাকছে অনেক অনেক উদ্বেগ। গত কয়েক বছরে অর্থনীতিতে বাংলাদেশের যে গতির সঞ্চার হয়েছিল, তা যেন অনেকটাই যেন থমকে গেছে। প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স ছাড়া এই দেশের সব  অর্থনীতির প্রায় সব সূচকই এখন নেতিবাচক।

বাংলাদেশের রপ্তানি বাণিজ্যে যেমন ধ্বস নেমেছে, রাজস্ব আদায় কমছে, মূল্যস্ফীতি উর্ধ্বমুখী, আমদানি কমছে, তারপরও চাপে আছে বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ।

বর্তমানে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা যাচ্ছে বিনিয়োগে। প্রায় আড়াই লাখ কোটি টাকার খেলাপি ঋণ নিয়ে ডুবতে বসেছে ব্যাংক খাত। পুঁজিবাজারও পতনের ধারা থেকে বেরিয়ে আসতে পারছে না। দেশের এই অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক বলছেন সবাই।

সরকার প্রদত্ত হিসাবে গত অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি বেড়েছে ৮ দশমিক ১৫ শতাংশ। এর ধারাবাহিকতায় ২০১৯-২০ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৮ দশমিক ২ শতাংশ। যা সুন্দর সূচনারই নির্দেশক ছিল। 

কিন্তু বছর শেষে প্রশ্ন থাকছে, অর্থনীতির বর্তমান দশায় এই প্রবৃদ্ধি কি আদৌ অর্জন সম্ভব হবে? খুব বেশি আশাবদী হতে পারছেন না অর্থনীতির গবেষক আহসান এইচ মনসুর।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক বলেন, অর্থবছরের প্রথম ছয় মাস ‘বেশ খারাপ’ গেছে। বাকি ছয় মাসে বড় ধরনের উন্নতি না হলে ৮ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন আসলে ‘খুব কঠিন’ হবে।

“সত্যিই সংকটের মুখে পড়েছে আমাদের অর্থনীতি। অর্থনীতির স্বাস্থ্য এখন খুবই দুর্বল। গত কয়েক বছরে যতোটা সবল হয়েছিল সেটা আর এখন নেই। দিন যত যাচ্ছে দুর্বলতা বাড়ছে।”

সবচেয়ে বড় ধাক্কা রপ্তানিতে

টানা চার মাস ধরে রপ্তানি আয় কমায় ২০১৯ সালে বড় ধাক্কা খেয়েছে অর্থনীতির অন্যতম প্রধান এই সূচক। আগামী দিনগুলোতেও ‘এই নেতিবাচক’ ধারা অব্যাহত থাকবে এমন আশঙ্কার কথা প্রকাশ করে সরকারের সহায়তা চেয়েছে রপ্তানি বাণিজ্যের প্রধান খাত তৈরি পোশাক শিল্প মালিকরা। যেখানে পোশাক খাত বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় আর্থিক উপার্জনের স্থান ছিল।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য মতে , ২০১৯-২০ অর্থবছরের জুলাই-নভেম্বর সময়ে এক হাজার ৫৭৭ কোটি ৭০ ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ। গত বছরের একই সময়ে রপ্তানির অংক ছিল এক হাজার ৭০৭ কোটি ৩৭ লাখ ডলার। এবার এই পাঁচ মাসে লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক হাজার ৮০৫ কোটি ডলার।

এ হিসাবমতে চলতি বছরের জুলাই-নভেম্বর সময়ে গত বছরের একই সময়ের চেয়ে রপ্তানি আয় কমেছে ৭ দশমিক ৬ শতাংশ। আর লক্ষ্যের চেয়ে কমেছে ১২ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

সর্বশেষ নভেম্বর মাসে রপ্তানি আয় কমেছে প্রায় ১১ শতাংশ। এই মাসে লক্ষ্যের চেয়ে আয় কমেছে ১৮ শতাংশ।

সার্বিক পরিস্থিতিকে ‘খুবই খারাপ’ হিসেবে চিহ্নিত করে বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক।  তিনি বলেন, 

 “দিন যত যাচ্ছে পরিস্থিতি ততই খারাপ হচ্ছে। আমাদের সব অর্ডার ভিয়েতনাম-ভারতে চলে যাচ্ছে। সরকারের পলিসি সাপোর্ট ছাড়া এই অবস্থা থেকে আমরা উত্তরণ ঘটাতে পারব না।”

ইতোমধ্যে বাংলাদেশের ৬০টি কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে এবং প্রায় ৩০ হাজার শ্রমিক বেকার হয়েছে তথ্য দিয়ে রুবানা হক জানান, 

“আমরা রপ্তানি খাতের জন্য টাকা-ডলারের আলাদা বিনিময় রেট চাই। আন্তর্জাতিক বাজার পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে সেটা ঠিক করে দিতে হবে। সেইসঙ্গে আমরা নগদ সহায়তা ঘোষণার জন্য সরকারের কাছে অনুরোধ করছি।”

বর্তমান বিশ্ব প্রেক্ষাপটে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে টাকার বিপরীতে ডলারের মান ৮ থেকে ১০ শতাংশ বাড়ানোর পক্ষে আহসান এইচ মনসুর।

তিনি জানান , “চীন, ভারত, ভিয়েতনামসহ প্রতিযোগী দেশগুলো তাদের রপ্তানিকারক ও প্রবাসীদের সুবিধা দিতে তাদের মুদ্রার মান কমিয়েছে।  ডলার শক্তিশালী করা ছাড়া আমাদের সামনে আর কোনো বিকল্প পথ খোলা নেই। অর্থনীতির স্বার্থেই এটা করতে হবে।”

তবে টাকার মান কমানোর কোনো ‘সম্ভবনা নেই’ জানিয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল গত ১৮ ডিসেম্বর সাংবাদিকদের বলেছেন, “আমরা স্পেসেফিক খাতে প্রণোদনা দেব। তাহলে ওই খাতটি বেগবান হবে। রপ্তানি বাণিজ্য বাড়াতে আমরা তৈরি পোশাক খাতকে প্রণোদনা দিয়েছি। আরও দিতে হলে দেব।”

গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ ৪ হাজার ৫৩৫ কোটি ৮২ লাখ (৪০.৫৩ বিলিয়ন) ডলার আয় করে। প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ১০ দশমিক ৫৫ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরে পণ্য রপ্তানির মোট লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৪ হাজার ৫৫০ কোটি (৪৫.৫০ বিলিয়ন) ডলার।

আমদানিও কমছে বাংলাদেশের 

বেশ কিছুদিন ধরেই বাংলাদেশের  আমদানিতে ধীরগতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এর মানে হলো, দেশের মানুষের ভোগ ব্যয় কমেছে এবং নতুন শিল্প স্থাপনে বিনিয়োগ কমেছে।

গত অর্থবছর আমদানি ব্যয় আগের বছরের চেয়ে ১ দশমিক ৭৮ শতাংশ বেড়েছিল। কিন্তু চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের জুলাই-অক্টোবর সময়ে গত বছরের একই সময়ের চেয়ে আমদানি ব্যয় ৩ দশমিক ১৭ শতাংশ কমেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, এই চার মাসে শিল্প স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় মূলধনী যন্ত্রপাতি (ক্যাপিটাল মেশিনারি) আমদানি কমেছে প্রায় ১০ শতাংশ। জ্বালনি তেল আমদানি কমেছে ১৫ শতাংশ। আর শিল্পের কাঁচামাল আমদানি কমেছে প্রায় ২০ শতাংশ।

লেনদেন ভারসাম্যে ঘাটতি বাড়ছে

রপ্তানি আয়ে বড় ধাক্কার কারণে বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যে (ব্যালান্স অফ পেমেন্ট) ঘাটতি বাড়ছে।

জুলাই-অক্টোবর সময়ে এই ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৩০ কোটি ৪০ লাখ ডলার। অথচ অগাস্ট মাস শেষেও অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ এই সূচকে ২৬ কোটি ৮০ লাখ ডলার উদ্বৃত্ত ছিল।

চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ঘাটতি ছিল ৭৬ কোটি ৫০ লাখ ডলার। চার মাসে (জুলাই-অক্টোবর) তা বেড়ে হয়েছে ১৩০ কোটি ৪০ লাখ ডলার।

অথচ অর্থবছর শুরু হয়েছিল ‘স্বস্তির’ মধ্য দিয়ে ২৪ কোটি ডলারের উদ্বৃত্ত নিয়ে। অগাস্ট পর্যন্ত সেই উদ্বৃত্ত ধরে রাখা গিয়েছিল। কিন্তু সেপ্টেম্বর শেষে আবারও ঘাটতি দেখা দেয়।

নিয়মিত আমদানি-রপ্তানিসহ অন্যান্য আয়-ব্যয় চলতি হিসাবের অন্তর্ভুক্ত। এই হিসাব উদ্বৃত্ত থাকার অর্থ হল, নিয়মিত লেনদেনে দেশকে কোনো ঋণ করতে হচ্ছে না। আর ঘাটতি থাকলে সরকারকে ঋণ নিয়ে তা পূরণ করতে হয়।

সুখবর শুধু রেমিটেন্সে

সব কিছুর পরও প্রবাসীরা তাদের উপার্জিত টাকা দেশে পাঠিয়ে অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে বড় ভূমিকা রাখছেন। চলতি অর্থবছরের পাঁচ মাসে (জুলাই-নভেম্বর) রেমিটেন্স এসেছে ৭৭১ কোটি (৭.৭১ বিলিয়ন) ডলার, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ২২ দশমিক ৬৬ শতাংশ বেশি।

এ বছর থেকে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার। আর তা রেমিটেন্স প্রবাহ বাড়াতে সহায়ক হচ্ছে বলেই মনে করেন আহসান এইচ মনসুর।

তিনি বলেন, “তবে আমি প্রণোদনা দিয়ে কোনো কিছু বাড়ানোর পক্ষে নই। বাস্তবতা বিবেচনায় নিয়ে পদক্ষেপ নিতে হবে। মনে রাখতে হবে, প্রণোদনা দিতে গিয়ে কিন্তু মোটা অংকের অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে। তার থেকে দক্ষ জনশক্তি রপ্তানি করে, অন্যান্য দেশের মত টাকার মান কমিয়ে প্রতিযোগিতা করে টিকে থাকাই হবে আসল কাজ।”

প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স বৃদ্ধি এবং আমদানি ব্যয় কমার পরও চাপে রয়েছে বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ। বৃহস্পতিবার রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩২ দশমিক ২৮ বিলিয়ন ডলার। ২০১৭ সালের পর রিজার্ভ আর কখনও ৩৩ বিলিয়ন ডলার ছাড়ায়নি।

মূল্যস্ফীতি ঊর্ধ্বমুখী

পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে (মাসওয়ারি) এবার নভেম্বর মাসে মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৬ দশমিক ০৬ শতাংশ, গত বছরের নভেম্বর মাসে তা ছিল ৫ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

এর মধ্য দিয়ে দীর্ঘ চার বছর পর মূল্যস্ফীতি ৬ এর ঘর অতিক্রম করল। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৬ দশমিক ১০ শতাংশ। আর চলতি অর্থবছরে মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৫ শতাংশে বেঁধে রাখার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

অক্টোবরের ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ থেকে নভেম্বরে মূল্যস্ফীতির বাড়ার ক্ষেত্রে প্রধান ভূমিকা রেখেছে খাদ্য খাত। পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান আরও সুনির্দিষ্ট করে বলেছেন, মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির প্রধান কারণ পেঁয়াজ।

নভেম্বরে খাদ্য খাতে মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৬ দশমিক ৪১ শতাংশ। গত বছরের একই মাসে যা ছিল ৫ দশমিক ২৯ শতাংশ।

গত সেপ্টেম্বরের শেষে ভারত রপ্তানি বন্ধ করে দিলে হু হু করে বাড়তে থাকে পেঁয়াজের দাম। দুই মাসের মধ্যে এই নিত্যপণ্যের দর ৩০ টাকা থেকে আড়াইশ টাকায় উঠে যায়। তবে নতুন পেঁয়াজ ওঠায় তা এখন কমে ১০০ থেকে ১২০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

বিনিয়োগ সেই তিমিরেই

রাজনৈতিক অস্থিরতা, জ্বালাও-পোড়াও, হরতাল-অবরোধ না থাকায়, বিদ্যুৎ-গ্যাস সরবরাহের উন্নতি হওয়ায় এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানজটের সমস্যা কমে আসায় সুফল পাচ্ছে দেশের অর্থনীতি। কিন্তু এর তেমন কোনো প্রভাব বিনিয়োগে দেখা যাচ্ছে না।  

অক্টোবর শেষে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহের প্রবৃদ্ধি ১০ দশমিক ০৪ শতাংশে নেমে এসেছে।গত অর্থবছর  শেষে যা ছিল ১১ দশমিক ৩২ শতাংশ। আর এটাকেই এ মুহূর্তে বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রধান সমস্যা বলে মনে করছেন আহসান এইচ মনসুর।

“মরার উপর খরার ঘা আরকি! এমনিতেই বিনিয়োগের অবস্থা খারাপ, তার উপর সরকার ব্যাংক থেকে টাকা ধার নেওয়ায় সংকট আরও বেড়েছে।"

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা গ্রহণের সময় বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ছিল ৫ এর ঘরে, সেই প্রবৃদ্ধি এই দশ বছরে বেড়ে ৮ শতাংশ ছাড়িয়েছে।

কিন্তু বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সমীক্ষা বলছে, গত দশ বছরে দেশে বিনিয়োগের পরিমাণ জিডিপির আনুপাতিক হারে বেড়েছে সামান্যই।

পুঁজিবাজারের করুণ দশা

পুঁজিবাজারের অবস্থা আরও করুণ। ২০১০ সালের ধসের পর নানা উদ্যোগ নেওয়া হলেও বাজার স্বাভাবিক হচ্ছে না। তালিকাভুক্ত কোম্পানির এক চতুর্থাংশের দাম অভিহিত মূল্যের (ফেইস ভ্যালু, ১টাকা) নিচে নেমে এসেছে। বেশ কিছু কোম্পানির দর ৫ টাকার কম।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে বুধবার লেনদেন ছিল ৩০৫ কোটি টাকার সামান্য বেশি। অথচ ২০১০ সালের উত্তাল সময়েও এ বাজারে লেনদেন ৩ হাজার ২০০ কোটি টাকার বেশি ছিল। ২০১৯ সালের শুরুতেও হাজার কোটি টাকার ওপরে লেনদেন হয়েছে।

ব্যাংক খাত ভঙ্গুর অবস্থায়

আহসান মনসুর বলেন, বাংলাদেশের ব্যাংক খাত নিয়ে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) একটি শক্তিশালী রিপোর্ট দিয়েছে, তাতে সরকারের কিছুটা হলেও টনক নড়েছে বলে মনে হচ্ছে।

“ওই প্রতিবদেনে আইএমএফ বলেছে, বাংলাদেশে একটি নির্দিষ্ট শ্রেণির মানুষের মধ্যে ঋণ নিয়ে ফেরত না দেওয়ার প্রবণতা অত্যন্ত গভীর। প্রভাবশালী ও ধনী কিছু ব্যবসায়ী ঋণ ফেরত দেওয়ার কোনো তাগিদই অনুভব করেন না। ওপর মহলেও তাদের ভালো যোগাযোগ আছে। ক্ষমতাধর এই ঋণগ্রাহকরা এখন বাংলাদেশে আর্থিক খাতের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তও নিচ্ছে।”

বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ঋণ কেলেঙ্কারি-অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ার কারণেই ব্যাংকিং খাতের এই দুরাবস্থা হয়েছে বলে মনে করেন আইএমএফের কর্মকর্তা হিসেবে মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়া, আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করে আসা আহসান মনসুর।

আইএমএফের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজরদারি একদিকে দুর্বল, অন্যদিকে ব্যাংক পরিচালক ও ব্যবস্থাপকদের আচরণ ‘বেপরোয়া’। নিয়ম ভাঙলে এখানে এখনও শাস্তি হয় না। বরং খেলাপিদের এখানে আড়াল করে রাখা হচ্ছে।

সরকারের নানা পদক্ষেপের পরও ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ বেড়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হিসাবে, সেপ্টেম্বর শেষে ব্যাংক খাতের মন্দ ঋণের অংক দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ১৬ হাজার ২৮৮ কোটি টাকায়, যা মোট বিতরণ করা ঋণের ১২ শতাংশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হিসাবে তিন মাসের ব্যবধানে খেলাপি ঋণ বেড়েছে প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা। নয় মাসের ব্যবধানে তা বেড়েছে ২২ হাজার ৩৭৭ কোটি টাকা। অবশ্য আইএমএফ, স্থানীয় অর্থনীতিবিদ এবং ব্যাংকাররা বলছেন, প্রকৃত হিসাবে খেলাপি ঋণের পরিমাণ আরও অনেক বেশি।

বিভিন্ন সময়ে বিশেষ ব্যবস্থায় খেলাপি ঋণ পুনঃতফসিল করা হয়। সরকারের নির্দেশে বারবার ঋণ পুনঃতফসিল করার উদাহরণও আছে। ২০১৫ সাল থেকে শুরু হয়েছে বড় অংকের খেলাপি ঋণের পুনঃতফসিল। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হিসাবে এ রকম বিশেষ নির্দেশিত হিসাবে থাকা ঋণের পরিমাণ ২৭ হাজার ১৯২ কোটি টাকা।

আবার বাংলাদেশ ব্যাংকের অনাপত্তি নিয়ে জুন পর্যন্ত আরও ২১ হাজার ৩০৮ কোটি টাকার খেলাপি ঋণ নিয়মিত করে দিয়েছে বিভিন্ন ব্যাংক। এই সব হিসাবে নিলে বাংলাদেশে এখন মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় আড়াই লাখ কোটি টাকা।

আইএমএফ এসব ঋণ অন্তর্ভুক্ত করেই খেলাপি ঋণের হিসাব করতে বলেছে সরকারের কাছে দেওয়া প্রতিবেদনে।

এই বিভাগের আরও খবর
গ্যাস–সংকটে বিপাকে শিল্পমালিকেরা

গ্যাস–সংকটে বিপাকে শিল্পমালিকেরা

প্রথমআলো
ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা বোর্ডকে টাকা তোলার অনুমতি

ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা বোর্ডকে টাকা তোলার অনুমতি

সময় নিউজ
ইসলামী ব্যাংকের আমানত এখন ১ লাখ ৩৯ হাজার কোটি টাকা

ইসলামী ব্যাংকের আমানত এখন ১ লাখ ৩৯ হাজার কোটি টাকা

বণিক বার্তা
ক্রেডিট কার্ড–কাণ্ডে ন্যাশনাল ব্যাংককে ৫৫ লাখ টাকা জরিমানা

ক্রেডিট কার্ড–কাণ্ডে ন্যাশনাল ব্যাংককে ৫৫ লাখ টাকা জরিমানা

প্রথমআলো
লকডাউন আর না দেওয়ার আহ্বান এফবিসিসিআই সভাপতির

লকডাউন আর না দেওয়ার আহ্বান এফবিসিসিআই সভাপতির

যুগান্তর
বন্ধ হচ্ছে না বাণিজ্য মেলা

বন্ধ হচ্ছে না বাণিজ্য মেলা

সময় নিউজ
ট্রেন্ডিং
  • ১২ বছরের বেশি বয়সী শিক্ষার্থীরা টিকা না নিলে স্কুলে যেতে পারবে না

  • ১২-১৭ বছর বয়সি শিক্ষার্থীদের কাল থেকে টিকা দেয়া শুরু

  • আজ শনাক্ত ২৪৩ জন, মৃত্যু আরও ১০ জনের

  • যে কারণে নিজেকে বিশ্বকাপ থেকে সরিয়ে নিলেন তামিম

  • দ্রুত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

  • করোনায় আরও ২৩৭ জনের, নতুন শনাক্ত ১০,৪২০

  • সোমবার থেকে সিনোফার্মা, মঙ্গলবার থেকে মর্ডানার ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু

  • ১৪ জুলাই পর্যন্ত বাড়ল কঠোর লকডাউন

  • কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের দুই পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে

  • ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৮৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৫৭২৭