News

প্রতি মণ বিক্রি হচ্ছে সর্বোচ্চ ১২০০ টাকায়

November 21, 2020

অসময়ে বৃষ্টি ও বন্যার মতো নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে চলতি মৌসুমে দেশজুড়ে আমন আবাদ ব্যাহত হয়েছে। তবে বর্তমানে বাজারে আমনের চড়া দামে সে ক্ষতি পুষিয়ে নিচ্ছেন চাষীরা। দিনাজপুর, হিলি, বগুড়া ও নওগাঁর বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বতর্মানে প্রতি মণ আমন সর্বনিম্ন ৯০০ থেকে সর্বোচ্চ ১২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। যা গত দুই দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ। বছর দুয়েক আগে সর্বোচ্চ ১ হাজার টাকা দরে প্রতি মণ আমন বিক্রি হয়েছিল। ওই সময় বন্যার কারণে অধিকাংশ আমনক্ষেত ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ধানের দাম বেড়ে যায়। গত বছর একই সময় বিভিন্ন জাতের আমন ধান গড়ে ৭০০-৮০০ টাকা দরে প্রতি মণ বিক্রি হয়েছিল।

এদিকে মৌসুমের শুরুতে ধানের দাম বৃদ্ধিকে ইতিবাচকভাবেই দেখছেন কৃষি কর্মকর্তারা। তাদের দাবি, মৌসুমের শুরুতে ধানের দাম বৃদ্ধি প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র চাষীদের জন্য আশীর্বাদস্বরূপ। 

হিলির ছাতনি চারমাথা গ্রামের কৃষক জোসেফ হাসদা বলেন, চলতি আমন মৌসুমে স্বর্ণা জাতের ধান রোপণ করেছিলাম।  শুরু থেকেই ধানের গাছ খুব ভালো ছিল, কিন্তু ঠিক যখন গাছে ধান বেরোনোর সময় হয় তখনই ধান গাছে মাজরা ও কারেন্ট পোকার আক্রমণ দেখা দেয়। তার ওপর ইঁদুরের আক্রমণও দেখা দিয়েছিল। ভেবেছিলাম এবার আমন আবাদ করে লোকসান গুনতে হবে। তবে বাজারে আমনের ভালো দাম পাওয়ায় লোকসান থেকে রক্ষা পেয়েছি।